শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদঃ
সর্বশেষ সংবাদঃ
মাগুরায় পুলিশের অভিযানে দুইটি চোরাই মোটরসাইকেল সহ আটক তিন মহম্মদপুরে ৩২ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ পুলিশের হাতে আটক ১ মহম্মদপুরে দেশীয় অস্ত্র সহ ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতার শ্রীপুরে বিশেষ আয়োজনে ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে ব্যতিক্রমী আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো মাগুরা রিপোর্টার্স ইউনিটের বাৎসরিক আনন্দ ভ্রমণ শেষ পৌষের কনকনে শীতে কাঁপছে মাগুরা! মাগুরার মহম্মদপুরে শতবর্ষী ঐতিহ্যবাহী বড়রিয়ার মেলা শুরু! মাগুরার শ্রীপুরে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১০ (দশ) কেজি গাজা উদ্ধার। মাগুরার জনগণ নির্বিঘ্নে উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দিতে পারবে – পুলিশ সুপার মাগুরায় জমে উঠেছে ফুটপাতের শীতের পিঠা! মাগুরা মহম্মদপুরে জোড়া খুনের ঘটনায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে মূল আসামী গ্রেফতার” মহম্মদপুরে আপন দুই ভাইয়ের গলাকাটা লাশ উদ্ধার আটক-২ মাগুরায় ব্রিজের নিচে হতে উদ্ধারকৃত কঙ্কালের রহস্য উদঘাটন সহ মূল আসামি গ্রেফতার। ঝরে পড়া ৩০ শিশুকে স্কুলে ফেরাল জেলা প্রশাসক মাগুরা শালিখায় অসহায়, দুঃস্থ ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে “এক পেট আহার অত:পর হাসি” এর পক্ষ থেকে খাবার বিতরণ প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গাপূজা ২০২৩ মাগুরার মহম্মদপুরে পুজা মন্ডপ পরিদর্শন ও অনুদান বিতরণ মাগুরা জেলার তিন উপজেলা নির্বাহী অফিসারগনের বিদায় এবং সদ্য তিন উপজেলা নির্বাহী অফিসারগনের যোগদান উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে বরেন্দ্র প্রেসক্লাবের নির্বাচন ইসলামী ব্যাংক কামারখালী বাজার আউটলেটের গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত
Notice :
প্রিয় পাঠক   দৈনিক মাগুরার কথা   অনলাইন নিউজ পোর্টালে আপনাকে স্বাগতম । গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিয়ম মেনে বস্তু নিষ্ঠ তথ্য ভিত্তিক সংবাদ প্রচার করতে আমরা বদ্ধ পরিকর ।  বি:দ্র : এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা,  ছবি ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি । এখানে ক্লিক করুণ Apps  

কেশবপুরে রহিমা আমেরিকার হোগল দম্পতির ভালোবাসার দৃষ্টান্ত স্থাপন

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি / ১৮৩ বার পঠিত হয়েছে।
নিউজ প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ১২:০৯ পূর্বাহ্ন

 

ভালোবাসার এক অনন্য দৃষ্টান্ত্ম স্থাপন করেছেন রহিমা খাতুন ও ক্রিস্টফার মার্ক হোগল দম্পতি। তাঁরা একে অপরকে ভালোবেসে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন প্রায় এক যুগ। এ দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনে তাঁদের ভালোবাসায় বিন্দু পরিমাণ ছেদ পড়েনি। হাতে হাত ও চোখে চোখ রেখে আমৃত্যু এক সঙ্গে বাকিটা জীবন কাটাতে চান। তাঁদের এ ভালোবাসার সঙ্গে অন্য কোন জুটির তুলনা করতে চায়নি। রহিমা-হোগল দম্পতির ভালোবাসাকে যেন আগামী প্রজন্ম স্মরণ করে এমন দৃষ্টান্ত রেখে যেতে চান।
বলছিলাম, যশোরের কেশবপুরের অজপাড়াগা মেহেরপুর গ্রামের রহিমা খাতুন ও আমেরিকার প্রেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার ক্রিস্টফার মার্ক হোগলের কথা। ২০১০ সালের ১০ এপ্রিল একে অপরকে ভালোবেসে তাঁরা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। রহিমাকে বিয়ে করে হোগল আর ফিরে যাননি আমেরিকায়। বসবাস করছেন মধুকবির স্মৃতি বিজড়িত কপোতাক্ষ নদ তীরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে গড়ে ওঠা মেহেরপুর গ্রামেই। ক্রিস্টফার মার্ক হোগল এখন আয়ুব হোসেন নামে পরিচিত। আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে তাঁরা একে-অপরকে গোলাপ ফুল বিনিময় করাসহ কেক কাটবেন। এছাড়া বাড়ির পাশে কপোতাক্ষ নদ তীরে ও মুন্সি মেহেরুল্লাহ মাজারে হাতে হাত ধরে ঘুরে বেড়াবেন।
সরেজমিনে উপজেলার সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের মেহেরপুর গ্রামে ওই দম্পতির বাড়িতে গেলে দেখা যায়, দৃষ্টিনন্দন একটি বহুতল ভবনের কাজ চলছে। আমেরিকার প্রেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার ক্রিস্টফার মার্ক হোগল বাড়ির উঠানে বসে গরুর জন্য খাবার কাটছেন। রহিমা খাতুন উঠানের পাশেই গরু ও ছাগলকে খাওয়ানোর জন্য ঘাস পরিচর্যা করছেন। জানতে পারলাম, ক্রিস্টফার মার্ক হোগল কিছুটা বাংলা বলতে পারেন ও বোঝেন। ইংরেজিতে কথা হলে ক্রিস্টফার মার্ক হোগল জানায়, তার বাড়ি যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানে। পেশায় তিনি পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার। রহিমা খাতুনের সঙ্গে ভারতের আসানসোলে তাঁদের প্রথম পরিচয় হয়। পরে তাঁরা একে-অপরকে ভালোবেসে ফেলেন। ভালোবাসার একপর্যায়ে ছয় মাস পর তারা ২০১০ সালের ১০ এপ্রিল বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাঁর আমেরিকায় এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। আমেরিকার স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর অনেক আগেই বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে। সেখানকার ছেলে-মেয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে।
এ সময় রহিমা খাতুন স্মৃতিচারণ করে বলেন, তিনি ছোটবেলায় বাবা-মায়ের হাত ধরে ভারতে যান। সেখানে তাঁরা কাজ করতেন। তাঁর বয়স যখন প্রায় চৌদ্দ বছর তখন তাকে বিয়ে দেওয়া হয়। বিয়ের পর তিন সন্তান হলে তার ওই স্বামী তাদেরকে রেখে অন্যত্র চলে যায়। তখন তিনি জীবিকার সন্ধানে মুম্বাই শহরে গেলে ক্রিস্টফার মার্ক হোগলের সঙ্গে পরিচয় ও বিয়ে হয়। বিয়ের পর হোগল তাকে নিয়ে চীনে যান। সেখানে ৫ বছর থাকার পরে হোগলকে নিয়ে নিজের জন্মভূমিতে নিয়ে আসেন। বর্তমানে মেহেরপুর গ্রামে তাঁরা প্রায় ৪ বছর ফিরে এসে বসবাস করছেন। তাঁর স্বামীর সঙ্গে থাকতে থাকতে ইংরেজি, হিন্দি ও চায়না ভাষা রপ্ত করেছেন। তিনি মেহেরপুর গ্রামের মৃত আব্দুল খাঁ ও নিছারুন বেগমের মেয়ে।
রহিমা খাতুন আরও বলেন, তাঁরা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এভাবেই এক-অপরকে ভালোবেসে থাকতে চান। তিনি আমেরিকার দুই সন্তানকেও মেহেরপুরের বাড়িতে আনবেন।
কথা প্রসঙ্গে ক্রিস্টফার মার্ক হোগল বলেন, তিনি মহাকবি মাইকেল মধুসূদন সম্পর্কে জানেন। তার কবিতা পড়েছেন। মহাকবির জন্মভূমি সাগরদাঁড়ি বেড়াতে গেছেন। বাড়ির পাশে মুন্সি মেহেরুল্লার মাজারেরও তিনি নিয়মিত যাতায়াত করেন। তিনি আধো আধো বাংলায় বলেন, আমি রহিমাকে খুব ভালোবাসি। বাংলাদেশ খুব ভালো জায়গা। এ গ্রাম আমার ভালো লাগে।
রহিমার বড় ছেলের স্ত্রী তামান্না খাতুন বলেন, শ্বশুর ক্রিস্টফার মার্ক হোগল (আয়ুব হোসেন) তাদেরকে খুবই ভালোবাসেন। তার ব্যবহার অত্যন্ত ভালো। এলাকার মানুষের সঙ্গে সুন্দর ব্যবহার করে মন জয় করেছেন। তাকে কোন কাজ একবার দেখিয়ে দিলেই করতে পারেন। তিনি কৃষি কাজসহ গরু-ছাগল পালন করছেন। বাড়িতে ৭টি গরু ও ৯টি ছাগল নিজ হাতে দেখাশোনা করেন। তিনি এবার ১৫ কাটা জমিতে বোরো আবাদ করেছেন।
মুন্সি মেহেরম্নলস্নাহ মাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ বলেন, রহিমা ও হোগলের এ ভালোবাসার কাহিনী সকলের মুখে মুখে। হোগল (আয়ুব আলী) খুবই ভালো মানুষ। তিনি মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে। দেখলে আগে সালাম দিয়ে কুশল বিনিময় করে। আমরা এমন একজন বিদেশী মানুষকে পেয়ে খুবই খুশি।


এই বিভাগের আরও খবর
এক ক্লিকে বিভাগের সবখবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!